লকডাউন ও অকালবর্ষণের জেরে মূল্যবৃদ্ধি ছাড়াতে পারে ৭ শতাংশ

ওয়েব ডেস্ক, ১২ নভেম্বর—চাহিদা অনুসারে বাজারে সরবরাহ নেই। যার জেরে দেশজুড়ে অগ্নিমূল্য শাকসবজির দাম। বিশেষত, পেঁয়াজের ঝাঁঝে চোখে জল মধ্যবিত্তের। মূল্যবৃদ্ধির প্রতিযোগিতায় সমানভাবে পাল্লা দিচ্ছে আলুও। এই পরিস্থিতিতে দেশে মুদ্রাস্ফীতি কমার সম্ভাবনা খুবই কম। বরং তা আরও বাড়তে পারে। গত অক্টোবর মাসেও মূল্যবৃদ্ধির হার ৭ শতাংশের উপরে থাকতে পারে বলে মত বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদদের। আর তাঁদের এই পূর্বাভাস মিলে গেলে এই নিয়ে টানা দ্বিতীয় মাসে মুদ্রাস্ফীতি ৭ শতাংশের গণ্ডি ছাড়াতে চলেছে।

অকাল বর্ষণ ও কোভিড লকডাউনের কারণে ফসল বুনতে দেরী হওয়ায় এই মরশুমে মহারাষ্ট্র, কর্নাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ-সহ বিভিন্ন রাজ্যে সবজি বিশেষত পেঁয়াজ চাষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। নতুন ফসল বাজারে উঠতেও বেশ কিছুটা দেরী হচ্ছে। যার জেরে দাম আকাশ ছোঁয়া। পেঁয়াজের সঙ্গে বিভিন্ন রাজ্যে আলুর দামও আগুন। পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিদেশ থেকে আলু ও পেঁয়াজ আমদানি শুরু হয়েছে। শাকসবজির এই অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি গত অক্টোবর মাসজুড়ে ছিল, যা দেশের সামগ্রিক মুদ্রাস্ফীতির হারকে অনেকটা বাড়িয়ে তুলবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। অক্টোবর মাসে দেশে মুদ্রাস্ফীতির হার সম্পর্কে ধারনা পেতে গত ৪ নভেম্বর থেকে ৯ নভেম্বর একটি ভোট নিয়েছিল সংবাদসংস্থা রয়টার্স। ওই মাসে মুদ্রাস্ফীতি ৭ শতাংশ ছাড়িয়ে যাবে কি। এই প্রশ্ন করা হয়েছিল ৫০ জন অর্থনীতিবিদের কাছে। অধিকাংশ বিশেষজ্ঞ উত্তরে ‘হ্যাঁ’ বলেছেন।