ভাত জোগাড়ের দায়িত্ব আমার নয়, মেজাজ হারিয়ে বললেন নীহার

মালদা, ৫ আগস্ট : গরিব মানুষের ভাত জোগাড় করে দেওয়ার দায়িত্ব আমার নয়। আপনার কি অসুবিধা হচ্ছে বলুন, যেটা করার সরকার করবে।মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নির্দেশ মতো জনসংযোগ প্রচার – যাত্রায় গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পরে মেজাজ হারিয়ে এমনি মন্তব্য করলেন ইংরেজবাজারের তৃণমূল বিধায়ক নিহার ঘোষ। রবিবার ছুটির দিনে ইংরেজবাজার ব্লকের বিনোদপুর গ্রামে জনসংযোগ প্রচার যাত্রায় গিয়েছিলেন তৃণমূল বিধায়ক নীহার রঞ্জন ঘোষ। গ্রাম ঘুরে মানুষের সমস্যার কথা শুনতে গিয়ে চরম বিক্ষোভের মুখে পড়েন তিনি। দিদিকে বলো কর্মসূচির ফোন নম্বর দেওয়া কার্ড বিলি করছিলেন বিধায়ক। তখনই গ্রামবাসীদের অভিযোগ শুনতে গিয়ে মেজাজ হারান তিনি। তৃণমূল বিধায়ক তথা ইংরেজবাজার পুরসভার চেয়ারম্যান নীহার ঘোষকে গ্রামবাসীদের নিয়ে গোল মিটিং-এর মধ্যে বলতে দেখা যায়, ভাতার বিষয়টি দেখে মোদি সরকার। আমার কিছু করার নেই। আমি শুধু এসেছি দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নির্দেশে জনসংযোগ বাড়াতে। গরিব মানুষের ভাত জোগাড় করে দেওয়ার দায়িত্ব আমার নয়। তবে হ্যাঁ আপনাদের কি অসুবিধা হচ্ছে সেটা বলুন , মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে জানাবো। উনি বিষয়টি দেখবেন।
এদিকে বিনোদপুর গ্রামের বাসিন্দাদের অভিযোগ, ভোট আসে, ভোট যায়। কিন্তু অসহায় গ্রামবাসীদের দেখার কেউ নেই। এলাকার বেহাল রাস্তাঘাট। ভেঙে পড়ছে গরিব মানুষদের কাঁচা বাড়ি। মিলছে না বার্ধক্য এবং বিধবা ভাতা। নেই ১০০ দিনের কাজ। এসব নিয়েই বিধায়ককে জানানো হয়েছিল। অথচ উনি বলছেন মানুষের ভাত জোগাড় করে দেওয়ার দায়িত্ব তাঁর নয়। উনি অসুবিধার কথা শুনবেন আর সরকারকে জানাবেন। বিধায়কের কথাতেই গ্রামের একাংশ মানুষ উত্তেজিত হয়েছিল। বিধায়ক নিহার ঘোষ জানান,যেটা সত্যি সেটাই বলেছি।মুখ্যমন্ত্রীর কথামতো জনসংযোগ যাত্রায় সামিল হয়েছি।মানুষের যা অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানাতে হলে ফোন করতে বলা হয়েছে।
বিধায়কের এমন কথার সমালোচনায় মুখর হয়েছে জেলা বিজেপি। বিজেপির জেলা সভাপতি গোবিন্দ মন্ডল বলেন, তৃণমূলের নেতা নেত্রী সকলেই এখন মেজাজ হারাচ্ছেন। রাজ্য সরকারের একটা বিধায়কের মুখে এমন কথা কাম্য নয়। ভোট নিতে যাওয়ার সময় মানুষকে কি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি ? রাজ্য সরকারের একটা অংশ হিসাবে তা অস্বীকার করতে পারেন না তিনি। তবুও তিনি এই কথা বলছেন। তাহলে কি তিনি সরকারের বাইরের অন্যদলের বিধায়ক ?