শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে এসে পরকিয়ার অভিযোগে আটক যুবক

উত্তর দিনাজপুর, ১০ আগস্ট– শ্বশুরবাড়িতে স্ত্রীর সাথে দেখা করতে গিয়ে বন্ধুর স্ত্রীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় আটক জামাই। এই ঘটনাকে ঘিরে ব্যপক উত্তেজনা ছড়ায় উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জের মোস্তাফানগর পঞ্চায়েতের পূর্বপালপাড়া এলাকায়। আটক জামাই ও গ্রামের বধূকে গাছের সাথে বেধে রাখে গ্রামের মানুষ। খবর পেয়ে পুলিশ দুইজনকে উদ্ধার করে বাধন মুক্ত করে নিজেদের হেপাজতে নেয়। শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে আসা জামাইয়ের এমন পরকিয়া প্রেমকাহিনী প্রকাশ্যে আসতেই তা ভাইরাল হয় এলাকায়। আটক মহিলা দুই সন্তানের জননী। তাঁর দুটি সন্তান রয়েছে। তিনি বলেন, আমি সন্ন্যাসীকে ভালোবাসি। তার সাথে সংসার করতে চাই। তাই এদিন নিজের কাছে ডেকেছি। ১১ বছর আগে বিয়ে হলেও তার স্বামী তার সাথে থাকে না। সংসারের খরচ কিংবা তার দুই ছেলের কোনো খোঁজ নেয় না।
অন্যদিকে, নিজেকে কলকাতার বাসিন্দা বলে পরিচয় দেওয়া নিমাই সন্ন্যাসী বলেন, আমাকে সে ভালোবাসে। আমার তাকে ভালো লাগে। তাই বিয়ে করে সংসার বাধতে চাই। তাহলে আগের স্ত্রী ও সন্তানদের কি হবে। সে প্রশ্নের উত্তরে সন্ন্যাসীর দাবি স্ত্রী সাথে গত এক বছর হল সম্পর্ক প্রায় ছিন্ন হয়েছে। তাকে ছেড়ে তাই একে নিয়ে ঘর বাধতে চাই। বেড়াতে এসে জামাইয়ের এমন পরকিয়ার পর্দা ফাঁসে রিতিমতো অশান্তিতে তাঁর স্ত্রী ও শ্বশুবাড়ির লোকেরা। এদিন সন্ন্যাসী জানায়, দিল্লিতে তার সাথেই কাজ করে এই গ্রামের যুবক। সেই যুবক তার স্ত্রীর সাথে কথা বলতে ব্যবহার করতো সন্ন্যাসীর মোবাইল। এই মোবাইল সূত্র ধরেই সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল দিল্লিতে কর্মসূত্রে থাকা শশুরবাড়ির এলাকার বন্ধুপত্নীর সাথে।