কার্তুজ গিলে ফেলল এক সরকারি কর্মচারী

আচমকা পুলিশি তল্লাশিতে বাড়িতে থাকা একটি কার্তুজ গিলে ফেলল এক সরকারি কর্মচারী। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদ থানার বারুইবাড়ি গ্রামে। কার্তুজ গিলে ফেলায় অসুস্থ নুর ইসলাম নামে ওই সরকারি কর্মচারীকে রায়গঞ্জ গভর্মেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে হেমতাবাদ থানার পুলিশ।

এদিন রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালে চিকিৎসারত ওই হাসপাতালেরই গ্রুপ ডি কর্মচারী হেমতাবাদের বারুইবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা নুর ইসলামের দাবি করেন তাদের বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা চলছে। হেমাতাবাদ থানার পুলিশ বুধবার রাতে নূর ইসলামের কাছে একটি বেআইনি আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে বলে খবর পায়৷ খবর পেয়ে পুলিশ বাড়িতে হানা দেয়। পুলিশ নূর ইসলামের বাড়িতে তল্লাশি অভিযান চালায়৷ পুলিশ আগ্নেয়াস্ত্র না পেলেও নিজেকে বাঁচানোর জন্য তার কাছে থাকা একটি কার্তুজ সে গিলে ফেলে। চিকিৎসার জন্য পুলিশ নুরকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জ গভর্মেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। নূর ইসলাম জানায় তাঁকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। তার স্ত্রী তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। তার কাছে এব্যাপারে কোনও কাগজপত্র আসেনি। তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হয়েছে তাকে। তবে তার পেটের এক্সরে করানোর পর যে কার্তুজের ছবি পাওয়া গিয়েছে সে ব্যাপারে নুর ইসলাম জানান বাড়িতে পুলিশ আচমকা তল্লাশি শুরু করায় টেনশনে সে সেটা গিলে ফেলেছিল। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে হেমতাবাদ থানার পুলিশ।

বাইট ১) নূর ইসলাম (সরকারি কর্মী)