গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নয়, উন্নয়নের কাজকেই গুরুত্ব দিতে আহ্বান সাবিনা ইয়াসমিনের

জুলফিকার আলি ঃ কালিয়াচক ২ ব্লকে মনিটরিং কমিটি ঘোষণা হতেই শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে সংগঠনে অস্থিরতা তৈরি করার অভিযোগ উঠেছে কালিয়াচক ২ ব্লকের বিভিন্ন এলাকায়। শনিবার কোতুয়ালি ভবনের সামনে মনিটরিং কমিটি বিরোধীদের আন্দোলনে বিজেপি নেত্রীর উপস্থিতি নিয়ে ও চলছে দলে ব্যাপক অসন্তোষ। দলের জেলা নেতৃত্বও বিষয়টি নিয়ে রীতিমতো ক্ষুব্ধ। দলের মধ্যে এই ধরনের কাজকে কোনোভাবেই বরদাস্ত করা হবে না বলে জানানো হয়েছে।
গত ৫ আগস্ট মালদা জেলার ১২ টি ব্লকে মনিটরিং কমিটি তৈরির কথা জানান তৃণমূলের মালদা জেলা সভানেত্রী মৌসম নুর। এনিয়ে জেলার বিভিন্ন প্রান্তের নেতাকর্মীদের একাংশের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বিক্ষুব্ধরা জেলা সভানেত্রীর বাড়ির সামনে দীর্ঘক্ষণ ধরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। সবথেকে বেশি বিতর্ক তৈরি হয়েছে কালিয়াচক ২ ব্লকে। বিগত লোকসভা ভোটে এই ব্লকে শাসকদল তৃণমূলের ফল আশানুরূপ হয়নি। মোথাবাড়ি বিধানসভা আসনে প্রায় ২০ হাজার ভোটে শাসক দল পিছিয়ে রয়েছে। অভিযোগ, বেশ কিছু নেতা লোকসভা ভোটে গোপনে দলের বিরোধিতা করে প্রচার চালানোর কারণেই সুবিধা পেয়ে গিয়েছেন বিরোধী প্রার্থী। এনিয়ে নীচুতলার অনেক কর্মীর মধ্যে চাপা অসন্তোষ রয়েছে। এছাড়াও গ্রাম পঞ্চায়েত ও পঞ্চায়েত সমিতির কাজকর্মও দলের সিদ্ধান্তের পরিপন্থী বলে বারবার অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু ক্ষমতাসীন গোষ্ঠী কর্ণপাত করেননি। ঘর ও কাজকর্ম বিলিতে দুর্নীতির মতো গুরুতর অভিযোগ থাকলেও কর্মীদের পাত্তা দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। এর প্রভাবও পড়েছে ভোটের বাক্সে।
লোকসভা ভোটে ফল খারাপ দেখে মোথাবাড়ি বিধানসভা আসনে কংগ্রেসের টিকিট নেওয়ার জন্য নাকি ব্লকস্তরের কয়েক জন নেতা কংগ্রেসের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। সবমিলিয়ে কালিয়াচক- ২ ব্লকে চলছে দলের বিপক্ষে একটা ষড়যন্ত্র । বিধানসভা আসনটি কংগ্রেসের হাতে তুলে দিতে ছক করে কাজ এগোচ্ছে বলে কর্মীদের অভিমত। শনিবার কোতুয়ালি ভবনের সামনে মনিটরিং কমিটি বিরোধীদের আন্দোলনে বিজেপি নেত্রী ও পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা মৌসুমি মণ্ডলের উপস্থিতি নিয়েও চলছে দলে ব্যাপক অসন্তোষ। মৌসুমিদেবী তৃণমূল কংগ্রেসে থাকার কথা বলা হলেও তিনি নাকি বিজেপির মিছিল মিটিঙে এখনও যোগদান করছেন। বেশ কিছু দলীয় কর্মীকে অন্য কথা বলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে । ভাদু সেখ , আবদুল করিম , হাসান সেখদের দাবি, তাঁরা সেখানে মনিটরিং কমিটির বিষয়ে যাননি। তাদেরকে জেলায় পার্টির মিটিং আছে বলে ভুল বুঝিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। মোথাবাড়ির বিধায়িকা সাবিনা ইয়াসমিনকে কোতুয়ালি ভবনের সামনে মনিটরিং কমিটি বিরোধীদের আন্দোলনের বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, মনিটরিং কমিটি নিয়ে কারও কোনো অভিযোগ থাকলে তা পাটি ফোরামে আলোচনা করা উচিত। এ বিষয়ে যা করার দল করবে। তবে দলীয় কর্মীদের অভিযোগ নিয়ে দল যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। মোথাবাড়ির জন্য বহু প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে । কর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে আরও নেওয়া হবে। সেই উন্নয়নের কাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। তবে দলে থেকে কোনোপ্রকার গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বরদাস্ত করা হবে না। ২০২১ সালে বিধানসভা ভোট। এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে সবাইকে মিলেমিশে কাজ করতে হবে। কর্মী ও এলাকার মানুষের স্বার্থকে আগে দেখা হবে। যদি দলের কোনো নেতা, পঞ্চায়েত ও পঞ্চায়েত সমিতি কর্মকর্তা পার্টি লাইনের বিরুদ্ধে গিয়ে অনৈতিক কোনোপ্রকার কাজ করেন, তবে ওইসব নেতার বিরুদ্ধে দল ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। আগামী একমাসের মধ্যে সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে বলে তিনি আশাবাদী।