১৮ আগস্ট মালদার স্বাধীনতা দিবস পালন করল বলাকা সংঘ

মালদা,১৮ আগস্ট : ১৫ নয়, মালদা জেলা ভারতের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল ১৮ আগস্ট। এই দিনটি তাই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে পালিত হয়ে থাকে যথাযোগ্য মর্যাদায়। রবিবার সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন স্থানীয় কাউন্সিলর অম্লান ভাদুড়ি। এদিন মালদা শহরের বাবুপাড়ায় এক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে এই দিনটিকে স্মরণ করে বলাকা সংঘ।
জেলার ইতিহাস বলছে, ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীন হবে বলে আভাস পাওয়া গেলেও দেশভাগের কথা তেমন ভাবে বোঝা যায়নি৷ ধীরে ধীরে সেই ব্যাপার জানতে পারেন এই জেলার সাধারণ মানুষ৷ ততদিনে ব্রিটিশ সরকার পূর্ব ভারতের দেশভাগের সীমানা নির্ধারণের দায়িত্ব দেয় রাডক্লিফ রোয়েদারকে৷ ১২ আগস্ট পর্যন্ত রোয়েদার দেশের কোন অংশ ভারতে থাকবে, কোন অংশ পাকিস্তানে যাবে তা নির্ধারণ করতে পারেননি ৷ এরই মধ্যে দু’দেশের রাজনৈতিক নেতৃত্ব দেশের জমি দখলে নিতে দড়ি টানাটানি শুরু করে দেয়৷ অবশেষে ১৩ আগস্ট রাতে ঘোষণা করা হয়, মালদা জেলাকে পাকিস্তানের অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে ৷ এই জেলার ১৬টি থানাই চলে গিয়েছে পাকিস্তানে ৷ ১৪ আগস্ট তৎকালীন জেলা প্রশাসনিক ভবনে তুলে দেওয়া হয় পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা ৷ রাত থেকে জেলা জুড়ে শুরু হয়ে যায় উত্তেজনা৷ এই সময় আলোচনার পর ১৭ অগাস্ট রাতে ঘোষণা করা হয়, তৎকালীন মালদা জেলার নাচোল, ভোলাহাট, গোমেস্তাপুর, নবাবগঞ্জ ও শিবগঞ্জ থানাকে পাকিস্তানে রেখে বাকি ১১টি থানাকে ভারতের অন্তর্ভূক্ত করা হল ৷ ১৮ অগাস্ট সকালে পাবনার তৎকালীন অতিরিক্ত জেলাশাসক মঙ্গলা আচার্য উপস্থিত হন মালদায় ৷ তিনি স্বাধীন ভারতের মালদা জেলার প্রথম জেলাশাসক অশোক সেনকে নিয়ে প্রশাসনিক ভবনে উড়তে থাকা পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা নামিয়ে নেন ৷ অশোক সেন উত্তোলন করেন ভারতের জাতীয় পতাকা।
ঐতিহাসিক এই দিনটির গুরুত্ব তুলে ধরতে প্রতি বছরে ইংরেজবাজার শহরের বাবুপাড়ার বলাকা সংঘ মালদা জেলার ভারতভুক্তি দিবস পালন করে থাকে। এবারেও তার ব্যাতিক্রম হয়নি। রবিবারে ক্লাবের নিজস্ব ময়দানে দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইংরেজবাজার পুরসভার কাউন্সিলার অম্লান ভাদুড়ি সহ আরো অনেকে। দিনটির তাৎপর্য নিয়ে বিস্তারিত আলচনাও করেন তিনি।