আর্থিক প্রতিবন্ধকতাকে কাটিয়ে উচ্চমাধ্যমিকে রাজ্যে নবম মানিকচকের সোমা

বাবা আলাদা থাকেন। মা একটি মুদির দোকান চালিয়ে কোনোভাবে সংসার চালান। কিন্তু সেই প্রতিবন্ধকতা সাফল্যের অন্তরায় হয়নি মানিকচকের কৃতী ছাত্রী সোমা সাহার। উচ্চমাধ্যমিকের মেধা তালিকায় যুগ্মভাবে রাজ্যে সে নবম এবং জেলায় তৃতীয় স্থান দখল করেছে। তার প্রাপ্ত নম্বর ৪৮৭। এর মধ্যে সে বাংলায় ৯৭, ইংরাজিতে ৯৮, ভূগোলে ৯৯, ইতিহাসে ৯৬, দর্শনে ৯৭ এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞানে ৯৩ নম্বর পেয়েছে।
জানা গিয়েছে, পারিবারিক বিবাদের কারণে সোমার বাবা আলাদা থাকেন। সে তার মা ইতি সাহার সঙ্গে মামার বাড়িতে থেকেই পড়াশোনা করে। মানিকচক শিক্ষা নিকেতন থেকেই সে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছিল। মঙ্গলবার পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হওয়ার পর উচ্ছসিত সে। এদিন সোমা জানায়, পড়াশোনাটা ভালোভাবেই করতাম যাতে মেধা তালিকায় নাম আসে। রাতের দিকেই বেশি পড়াশোনা করতাম। তিনটি টিউশনি ছিল। এছাড়া স্কুলের শিক্ষকেরাও যথেষ্ট সাহায্য করেছেন। সব বিষয় মিলিয়ে মোট ৮৪৭ নম্বর পেয়েছি। রাজ্যে নবম হয়ে ভালো লাগছে। তবে চিন্তায় রয়েছি উচ্চশিক্ষা নিয়ে। পরিবারের আর্থিক অবস্থা খারাপ। দাদুর একটি দোকানের ওপর নির্ভর করেই পরিবার চলে। আগামীতে পড়াশোনার খরচ কীভাবে জোগাড় হবে, তা নিয়ে খুব চিন্তায় রয়েছি। আগামীদিনে কোথাও থেকে আর্থিক সাহায্য পেলে আরো ভালোভাবে পড়াশোনা করব। উচ্চমাধ্যমিকের পর ভূগোল নিয়ে পড়াশোনা করে ভবিষ্যতে একজন অধ্যাপিকা হওয়ার স্বপ্ন রয়েছে।