সুজাপুর বিধানসভা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উপহার দেওয়ায় লক্ষ্য কালিয়াচক ১ ব্লক তৃণমূলের নতুন সভাপতি সামিজুদ্দিন আহমেদের

জুলফিকার আলি- দীর্ঘদিন ধরেই কালিয়াচক-১ ব্লকের সুজাপুর আসনটি কংগ্রেসের কব্জায় রয়েছে। গণি খান চৌধুরি বেঁচে থাকার সময় এই আসনে কংগ্রেস এবং বিরোধীদের ভোটের মার্জিন রীতিমতো চর্চার বিষয় হয়ে দাড়াত। একসময় কংগ্রেসের এই শক্ত ঘাঁটি থেকে সিপিএম প্রার্থী হাজি কেতাবুদ্দিন প্রার্থী হলেও গণি ম্যাজিক অটুট ছিল। গণিখানের মৃত্যু হলেও এখনো কালিয়াচকের সুজাপুর বিধানসভা আসনকে মানুষ কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি হিসাবেই দেখে। রাজ্যে ২০১১ সালে তৃণমূল ক্ষমতায় এলেও সুজাপুরে দাঁত ফোটাতে পারেনি। তবে গত কয়েক বছরে এলাকার রাজনৈতিক সমীকরণ অনেকটাই বদলেছে। এই বিধানসভার ১২ টি গ্রাম পঞ্চায়েত , পঞ্ছায়েত সমিতি ও জেলা পরিষোধের আসন তৃণমূলের দখলে।পঞ্চায়েতের উন্ন্য়নমূল্ক কাজকে হাতিয়ার করেই এবার তাই সুজাপুর আসন দখলে ঝাঁপিয়েছে রাজ্যের শাসকদল।  কংগ্রেসের থেকে সুজাপুর আসনটি ছিনিয়ে নিতে কালিয়াচক ১ ব্লকে শাসক  তৃণমূল কংগ্রেসের সাংগঠনিক  রাশ তুলে দেওয়া হয়েছে নবনিযুক্ত সভাপতি সামিজুজ্জিন আহমেদের হাতে। রাজনৈতিক মহলে তিনি রাহুল বিশ্বাস নামেই পরিচিত। জেলা এবং রাজ্য নেতৃত্ব রাহুলবাবুর ওপর যে আস্থা রেখেছেন, তার বিশ্বাস রাখলে এখন থেকেই তিনি নেমে পড়েছেন মাঠে। মিশ্ন-২০২১ কে সামনে রেখে শুরু হয়ে গিয়েছে নির্বাচনী রণকৌশল তৈরির কাজ। সেই কাজের অঙ্গ হিসাবেই কালিয়াচক ১ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস কমিটির উদ্যোগে কালিয়াচক হাই স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হলো সুজাপুর বিধানসভা ভিত্তিক কর্মী সভা। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে এই কর্মীসভার আয়োজন  করা হয়েছিল। উপস্থিত ছিলেন মালদা জেলা চেয়ারম্যান ডাঃ মোয়াজ্জেম হোসেন, রাজ্যসভার সাংসদ তথা তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভানেত্রী মৌসম বেনজির নূর,    মোথাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক সাবিনা ইয়াসমিন, জেলা অর্ডিনেটর ডক্টর মানব ব্যানার্জি , অম্লান ভাদুরি, জেলা যুব  তৃণমূল কংগ্রেস  সভাপতি  প্রসেনজিৎ দাস, প্রবক্তা শ্রী শুভময় বসু ,  সুমনা আগরওয়ালা , জেলা পরিষদের সদস্য হাজী কেতাব উদ্দিন , আরিফুর রহমান মিয়া, কালিয়াচক ১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি আতিউর রহমান , কালিয়াচক ১ নম্বর ব্লক সভাপতি সামিজুদ্দিন  আহমেদ রাহুল ,সহ সভাপতি কুরবান সেখ ,আশরাফুল বিশ্বাস ,এসারুদ্দিন মণ্ডল,,হাজি মেরাজুল বসনি ,আরিফ আলি ,মুসলিম আলি ,হাসেন আলি   সহ অন্যান্যরা। এদিন  কালিয়াচক ১ ব্লকের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে  হাজারো  তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সামিজুদ্দিন আহম্মেদ রাহুল বিশ্বাস দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই  গোটা ব্লকে যুব, মহিলা থেকে শুরু করে সাধারন কর্মীদের মধ্যে নতুন করে উদ্দিপিনা লক্ষ্ করা গেছে ।  বিধানসভা ভোটের আগে  দলের শক্তি বৃদ্ধি করতে ঝাপিয়ে পড়েছেন রাহুলবাবু । ১৪ টি  গ্রাম পঞ্চায়েত ও কালিয়াচক ১ পঞ্চায়েত সমিতি  নিজেদের দখলে থাকলেও পঞ্চায়েত পরিচালনার ক্ষেত্রে দলের ভুমিকা বৃদ্ধি করতে চলেছেন তিনি। গ্রাম পঞ্চায়েত ও পঞ্চায়েত সমিতি মানুষের আশা আকাঙ্খা পুরনে কতটা সফল  তা খতিয়ে দেখতে অঞ্চল ও ব্লক স্তরে কমিটি গঠন করা হবে বলে দাবি করেন রাহুল বাবু ।আগামী বিধানসভা ভোটের আগে সংগঠন ও পঞ্চায়েত পরিচালনার ক্ষেত্রে  কোনপ্রকার ফাকফোকর রাখতে নারাজ ।তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি সামিজুদ্দিন আহমেদ বলেন, রাজ্য নেতৃত্বে নির্দেশ মতো সুজাপুর  বিধানসভা কেন্দ্রে কর্মীসভার আয়োজন করা হয়েছে। আজ   কেন্দ্রে থাকা বিজেপি সরকারের নানা জনবিরোধীমূলক নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন চলবে। তিনি আর ও বলেন আগামী বিধান সভা ভোটে সুজাপুর আসনটি কংগ্রেসের থেকে ছিনিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উপহার দেওয়াই তাঁর  একমাত্র লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ।